আগৈলঝাড়ায় ২শ’ ৪০ বছরের ঐতিহ্যবাহী মারবেল খেলার মেলা

আগৈলঝাড়ায় ২শ’ ৪০ বছরের ঐতিহ্যবাহী মারবেল খেলার মেলা

এইচ আর হীরা, বরিশাল ব্যুরো: বরিশালের আগৈলঝাড়ায় পৌষ সংক্রান্তির গোসাই নবান্ন উপলক্ষে রাজিহারে বসেছে ২৪০ বছরের ঐতিহ্যবাহী নারী-পুরুষ ও কিশোর-কিশোরীদের মারবেল খেলার মেলা। 

মঙ্গলবার ভোর রাতে ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান ও শুভ অধিবাসের মধ্য দিয়ে শুরু হওয়া পৌষ সংক্রান্তির গোসাই নবান্ন উপলক্ষে অনুষ্ঠিত সংকীর্ত্তন চলবে বুধবার রাত পর্যন্ত। বুধবার কাকডাকা ভোর থেকেই শুরু হয় ২শ’ ৪০ বছরের ঐতিহ্যবাহী মারবেল খেলা। দিনের আলো বাড়ার সাথে সাথে লোক সমাগম বাড়তে থাকে মেলায়। মেলায় আগৈলঝাড়াসহ পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন উপজেলার বিভিন্ন বয়সী হাজার হাজার হাজার শিশু ও নারী-পুরুষ মেলার প্রধান আকর্ষণ মারবেল খেলায় অংশগ্রহণ করে। উপজেলার রাজিহার ইউনিয়নের রামানন্দের আঁক গ্রামের মা সোনাই চাঁদ আউলিয়া মন্দির আঙিনায় অনুষ্ঠিত ২শ’ ৪০ বছরের ঐতিহ্যবাহী বার্ষিক সংকীর্ত্তন ও গোসাই নবান্ন উৎসব উপলক্ষে অন্যান্য বিগত বছরের মত এবছরও সেখানে অনুষ্ঠিত হয় ঐতিহ্যবাহী মারবেল খেলার প্রতিযোগীতা। মেলা পরিচালনা কমিটির সভাপতি বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক (নিওনেটোলজি) শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. বিধান চন্দ্র (বিসি) বিশ্বাস ও মেলার উপদেষ্টা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মলিনা 

রানী রায়, সাবেক ইউপি সদস্য স্থানীয় বাসিন্দা মিহির বিশ্বাস গোসাই নবান্ন ও মেলার উৎপত্তি সম্পর্কে বলেন, এই গ্রামের ছয় বছর বয়সী সোনাই চাঁদ নামে এক মেয়ের বিয়ের বছর না ঘুরতেই তার স্বামী মারা যান। স্বামীর মৃত্যুর পর শ্বশুর বাড়িতে একটি নীম গাছের নীচে সদ্য বিধবা কিশোরী দেবাদিদেব মহাদেবের আরাধনা ও পূজার্চনা শুরু করেন। পূজার্চনা থেকে সাধনা। এক সময় সাধনার উচ্চ মার্গে সিদ্ধ হলে সোনাই চাঁদের অলৌকিক কর্মকাণ্ড এলাকা ছাপিয়ে বাইরেও প্রচার পায়। সোনাই’র জীবদ্দশায় আনুমানিক ১৭৮০ খ্রিঃ ‘ সোনাই চাঁদ আউলিয়া মন্দির’ স্থাপন করা হয়। সোনাইর মৃত্যুর পরেও তার স্থাপিত মন্দির আঙিনায় চলে নাম সংকীর্ত্তন ও নবান্ন উৎসব। স্থানীয়দের উদ্যোগে ২০১২ সালে ওই মন্দিরটি পুনঃনির্মাণ করা হয়। পঞ্জিকা মতে, প্রতি বছর পৌষ সংক্রান্তির দিন নাম সংকীর্ত্তন ও গোসাই নবান্ন মহাউৎসবকে সামনে রেখে এই মেলা চলে আসছে। আর এই উৎসবকে ঘিরে অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে গ্রামীণ ঐতিহ্যের ধারক মারবেল খেলার মেলা। 

সোনাই চাঁদের দেহত্যাগের পর ওই বাড়িটি ‘সোনাই আউলিয়ার’ বাড়ি হিসেবে এলাকায় পরিচিতি লাভ করে। প্রতি বছরের মতো এ বছরও মেলা উপলক্ষে বৈষ্ণব সেবা, হরিনাম সংকীর্ত্তন শেষে সোয়া মণ (৫০ কেজি) চালের গুড়ার সাথে সোয়া মণ গুড়, ৫০ জোড়া (১শ’ পিচ) নারকেল ও প্রয়োজনীয় অন্যান্য খাদ্য উপকরণ মিলিয়ে তৈরি করা হয় গোসাই নবান্ন। ওই নবান্ন (মলিদা) মেলায় আগত দর্শণার্থীদের প্রসাদ হিসাবে পরিবেশন করা হয়। হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম পার্বণ পৌষ সংক্রান্তিতে ২শ’ চল্লিশ বছর ধরে ওই গ্রামে এই দিন উৎসব ও মারবেল মেলা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। মারবেল খেলার মূল রহস্য সম্পর্কে স্থানীয় বাসিন্দারা বলেন,  শীতকালে মাঠ-ঘাট শুকিয়ে যাওয়ায় তাদের পূর্ব পুরুষেরা মেলার এই দিনে মারবেল খেলার প্রচলন শুরু করেন করেছিলেন। যা ঐতিহ্যর ধারক হিসেবে আজও অব্যাহত আছে। সরেজমিনে দেখা গেছে, মন্দির এলাকার আশপাশের প্রায় ৫ বর্গ কি.মি এলাকা জুড়ে মারবেল খেলার আসর পেতেছে বিভিন্ন বয়সী  নারী পুরুষ ও কিশোর-কিশোরী সহ শিশুরা। মেলার নিরাপত্তায় পুলিশ প্রশাসনের উপস্থিতি ছিল লক্ষ্যনীয়। গোপালগঞ্জ থেকে আসা লিটন দাস, শিক্ষার্থী অবনী বাড়ৈ জানান, তারা মারবেল খেলার কথা শুনে মেলা দেখতে এসেছেন। ব্যতিক্রমধর্মী এই মেলা তাদের ভীষণ ভাল লেগেছে বলেও জানান তারা। তারা নিজেরাও মারবেল খেলেছেন। মেলায় মারবেল খেলার জন্য স্থানীয় নারী, পুরুষসহ বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা থেকে লোকজন এসেছেন। কাক ডাকা ভোর থেকে মেলা চলে গভীর রাত পর্যন্ত।