ওয়ারিতে লকডাউনের আদেশ জারি

ওয়ারিতে লকডাউনের আদেশ জারি
প্রতীকী ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর ওয়ারিতে পরীক্ষামূলক লকডাউন বাস্তবায়নের জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। শনিবার (২৭ জুন) দুপুরে করোনাভাইরাস নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত অনলাইন বুলেটিনে এ তথ্য জানান সংস্থাটির অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

এরই মধ্যে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে ম্যাপিং করে দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের কাছে পাঠানো হয়েছে।

ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাহ মো. এমদাদুল হক গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, আমরা ওয়ারী এলাকার ম্যাপিং পেয়েছি। এটি আমাদের দুটি ওয়ার্ডের মধ্যে পড়েছে। এ নিয়ে আমরা কাজ করছি।

এর আগে চলমান করোনাভাইরাসে আক্রান্তের হার বিবেচনায় রেড, ইয়েলো ও গ্রিন জোন সাম্প্রতি চিহ্নিত করে করোনা প্রতিরোধে গঠিত জাতীয় টেকনিক্যাল কমিটি ঢাকার ৪৫টি এলাকাকে অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ বা রেড জোন হিসেবে চিহ্নিত করে তা লকডাউনের সুপারিশ করেছিল। এর মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ২৮টি এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ১৭টি এলাকা রয়েছে। এদিকে, করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় দুই মাসেরও বেশি সময় দেশব্যাপি সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার।

গত ৩১ মে থেকে সেটা প্রত্যাহার করে সীমিত পরিসরে সব ধরনের অফিসিয়াল কার্যক্রম শুরু করে সরকার। এরপর থেকেই দেশে করোনার প্রকোপ বাড়তেই থাকে। এমন পরিস্থিতিতে করোনার প্রকোপ দিক বিবেচনা করে দেশব্যাপি তিনটি জোনে ভাগ করে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। সংক্রমণ বেশি এলাকাগুলোকে রেড জোন, অপেক্ষাকৃত কম এলাকা ইয়োলো জোন এবং সংক্রমণ খুব কম এমন এলাকাগুলোকে গ্রীণ জোন ভাগ করা হয়। সেই ভাবনা থেকেই রাজধানীর রাজা বাজারকে রেড জোন ঘোষণা করে লকডাউন করা হয়।

এবার সেই তালিকায় যোগ হলো রাজধানীর ওয়ারি এলাকা। তবে কবে থেকে ওয়ারিতে লকডাউন করা হবে সে ব্যাপারে এখনও কিছু জানা যায়নি। পর্যায়ক্রমে রাজধানীতে ৪৫টি এলাকাকে লকডাউনের আওতায় আনার ঘোষণা দিয়েছে সরকার। এছাড়াও বিভিন্ন জেলা ভিত্তিক ভাবেও রেড, ইয়োলো ও গ্রীন জোন ভাগ করা হয়েছে।

বিআলো/ইসরাত