গাজীপুরে কারখানায় আগুন: নিহত এক, আহত ২১

গাজীপুরে কারখানায় আগুন: নিহত এক, আহত ২১


গাজীপুর প্রতিনিধি:গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলায় হাইড্রোজেন পার অক্সাইড উৎপাদনকারী এএসএম কেমিক্যাল লিমিটেড নামের কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে।বৃহস্পতিবার বিকেলের দিকে লাগা এই আগুন প্রায় তিন ঘণ্টা চেষ্টার পর নিয়ন্ত্রণে আসে।
আগুনে কারখানাটির সিংহভাগই পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। একইসঙ্গে আগুনে পুড়ে যাওয়া একজনের মরদেহ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন ২১ জন।

শ্রীপুর থানার ওসি খোন্দকার ইমাম হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার বিকেলে শ্রীপুর উপজেলার টেপিরবাড়ি গ্রামের এএসএম কেমিক্যাল লিমিটেড নামক কারখানার হাইড্রোজেন পার অক্সাইড প্ল্যান্টের বিস্ফোরণ থেকে এ আগুনের সূত্রপাত হয়। এতে কারখানার ২০/২২ জন শ্রমিক আহত হয়েছেন।

আহতরা হলেন- ওই কারখানার সাপ্লাইম্যান মো. টুটুল, সহকারি প্রকৌশলী আমিনুল ইসলাম, অপারেটর আবির হোসেন, রোকুনুজ্জামান, কর্মকর্তা ওয়াসিম আকরাম, ইসহাক, সুজা উদ্দিন, সিলভেস্টা, আশরাফুল, মনির ও আমিনুল। আহতদের মধ্যে কয়েকজন উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

উদ্ধার কাজ চলাকালে রাত পৌনে ১১টার দিকে ক্ষতিগ্রস্ত কারখানার ৭ তলা ভবনের নিচতলায় এক ব্যক্তির পুড়ে যাওয়া লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

কারখানার আহত অপারেটর আবির হোসেন জানান, বিকেল চারটায় কারখানার হাইড্রোজেন পার অক্সাইড প্লান্টে বিকট শব্দে কিছু একটা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। মুহূর্তেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে পুরো প্লান্ট জুড়ে।

কারখানার প্রধান ফটকের সামনের এক মুদি দোকানী মোফাজ্জল হোসেন জানান, বিকেল সাড়ে চারটার দিকে হঠাৎ বিকট শব্দে আশপাশের জমি কেঁপে উঠে। এ সময়ে আতঙ্কে আশপাশে লোকজন ছুটোছুটি করে। মুহূর্তেই কালো ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন হয়ে পরে কারখানার আশপাশ। এক ভীতিকর পরিস্থিতি তৈরি হয় সবার মাঝে। বিস্ফোরণের বিকট শব্দে আশপাশে কারখানা, বসতবাড়ি দোকানপাটে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়লে লোকজন ছুটাছুটি শুরু করে দেয়।

কারখানার সহকারী মহাব্যবস্থাপক আব্দুর রউফ জানান, আহত শ্রমিকদের যাবতীয় চিকিৎসা কারখানার পক্ষ থেকে বহন করা হবে। তবে তাৎক্ষণিকভাবে আগুনে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানাতে পারেননি তিনি।

গাজীপুর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশনের উপ-পরিচালক আব্দুল হামিদ মিয়া জানান, আগুন লাগার খবরে প্রথমে শ্রীপুর ফায়ার সার্ভিসের দুইটি ইউনিট কাজ শুরু করে। পরে আগুনের ভয়াবহতা বেশি হওয়ায় জয়দেবপুর, টঙ্গী ও পার্শ্ববর্তী ময়মনসিংহের ভালুকাসহ বিভিন্ন ফায়ার স্টেশনের মোট আটটি ইউনিটের কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে।

রাত পৌনে ১১টার দিকে এক ব্যক্তির পুড়ে যাওয়া লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। লাশটি নিখোঁজ থাকা শ্রমিক আলমগীর হোসেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে হতাহতের সংখ্যা ও আগুন লাগার কারণ নিশ্চিত করতে পারেননি এ কর্মকর্তা।

তদন্ত কমিটি গঠন

গাজীপুর জেলা প্রশাসক এসএম তরিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, ওই ঘটনা তদন্তে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) মো. আবুল কালামকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। কমিটিকে তদন্ত প্রতিবেদন জমা করতে পাঁচ কর্মদিবস সময় দেয়া হয়েছে। এছাড়া জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিহত ব্যক্তিকে দাফনের জন্য ২০ হাজার টাকা দেয়া হবে।

বিআলো/শিলি