ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে জাবি শিক্ষকের অপসারণ

ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে জাবি শিক্ষকের অপসারণ

সিলভিয়া আক্তার জাবি প্রতিনিধি: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকার ও রাজনীতি বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী সোনিয়া বিশ্বাসকে যৌন হয়রানির অভিযোগে একই বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সানোয়ার সিরাজকে স্থায়ীভাবে অপসারণ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের সভাপতিত্বে এক সিন্ডিকেট বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারী) বিষয়টি  নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত নিবন্ধক রহিমা কানিজ। তিনি জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন নিপীড়ন সেলের তদন্ত প্রতিবেদন অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় সিন্ডিকেট এ সিদ্ধান্ত নেয়। সানোয়ার সিরাজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আর কোনো সুযোগ সুবিধা পাবেন না।

এদিকে এ ঘটনাকে ষড়যন্ত্র ও উদ্দেশ্যমূলক দাবি করে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী ঐ শিক্ষক। বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, যে আভিযোগে আমাকে চাকরি থেকে অপসারণ করা হয়েছে তার সঠিক তথ্যপ্রমাণ উপস্থাপনের সুযোগ আমাকে দেয়া হয়নি। যৌন নিপীড়নবিরোধী সেলে আমার সাথে অভিযুক্তের ফোনালাপ ও ম্যাসেজের খণ্ডিতাংশকে প্রমাণ হিসেবে উল্লেখ করে সিন্ডিকেটে এ সিদ্ধান্ত দেয়া হয়েছে। আমি রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার।

নিজেকে নির্দোষ দাবি করে এসময় তিনি আরও বলেন, যৌন নীপিড়নের অভিযোগকারী সোনিয়া বিশ্বাস এবং তার পরিবার অভিযোগ দেয়ার পর নিজের ভুল বুঝতে পেরে অভিযোগ প্রত্যাহার করতে চাইলে তাকে সুযোগ না দিয়ে তড়িঘড়ি করে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়েছে।

জানা যায়, ২০১৯ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর সানওয়ার সিরাজ নামের এই শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ করে সোনিয়া বিশ্বাস। পরে অভিযোগের প্রেক্ষিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌন নিপীড়নবিরোধী সেলের সুপারিশের প্রেক্ষিতে একই বছরের ২৯ সেপ্টেম্বর ওই শিক্ষককে একাডেমিক ও প্রশাসনিক কার্যক্রম থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেন উপাচার্য । এরপর ঘটনার তদন্ত শুরু করে ‘যৌন নিপীড়নবিরোধী সেল’।

বিআলো/শিলি