জমে উঠেছে সাতক্ষীরার ঐতিহ্যবাহী গুড়পুকুরের মেলা

জমে উঠেছে সাতক্ষীরার ঐতিহ্যবাহী গুড়পুকুরের মেলা

শফিকুল ইসলাম, সাতক্ষীরা : লটারী, অশ্লীল নৃত্য ও কোন ধরনের জুয়া ছাড়াই জমে উঠেছে সাতক্ষীরার ৩০০ বছরের ঐতিহ্যবাহী গুড়পুকুরের মেলা। প্রতিদিন সকাল থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত চলছে এ মেলা। প্রথম কয়েক দিন বৃষ্টির জন্য মেলা না জমলেও বর্তমানে মেলায় মানুষের উপচে পড়া ভিড়। মেলায় আসছে সব বয়সের মানুষ। ১৯ সেপ্টেম্বর শুরু হওয়া এ মেলা চলবে ১৫ দিন। মেলার ঐতিহ্য ধরে রাখতে নানামুখী উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ ও র‌্যাব মোতায়েনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

সাতক্ষীরার কয়েকজন প্রবীণ ব্যক্তি বলেন, প্রতি বাংলা বছরের শেষ ভাদ্রে (পুরোনো পঞ্জিকা অনুযায়ী) হিন্দু সম্প্রদায়ের মনসাপূজা উপলক্ষে সাতক্ষীরায় অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে গুড়পুকুরের মেলা। 

শহরের পলাশপোল স্কুলের উত্তর-পশ্চিম কোণের বটতলায় হয় ওই পূজা। এই পূজাকে কেন্দ্র করেই ৩শ’ বছরের আগে থেকে এ মেলা বসে আসছে। মেলাকে কেন্দ্র করে ধর্ম-বর্ণনির্বিশেষে সাতক্ষীরাবাসীর মিলনমেলায় পরিণত হয়ে ওঠে। আগে মেলা চলত অন্তত এক মাস ধরে। সারা দেশের ব্যবসায়ী ছাড়াও ভারতের কলকাতা থেকে ব্যবসায়ীরা আসতেন এ মেলায়। 

সাতক্ষীরা পৌর কাউন্সিলর কাজী ফিরোজ হাসান জানান, মেলায় দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা দেড় শতাধিক দোকান বসেছে। মেলায় আসা শ্যামনগর কাশিমাড়ী গ্রামের সাবিহা, তানিয়া খাতুন জানান, তারা প্রতিবছর মেলার জন্য অপেক্ষা করে থাকেন। গৃহস্থালী জিনিসপত্র অনেক কম দামে কেনা যায়। পাওয়া যায় সব ধরনের জিনিসপত্র। সাতক্ষীরার সাবেক পৌর কমিশনার ও মুক্তিযোদ্ধা হাসনে জাহিদ বলেন, মেলাটি বন্ধের জন্য দীর্ঘদিন ধরে মৌলবাদী গোষ্ঠীরা চক্রান্ত করছিল। ২০১১ সালে স্থানীয় মানুষের দাবির মুখে ছোট কলেবরে মেলাটি আবার চালু হয়। সাতক্ষীরা নাগরিক আন্দোলন মঞ্চের সভাপতি অ্যাড.ফাহিমুল হক কিসরু বলেন, একটা সময় সারা সাতক্ষীরা জুড়ে এ মেলা অনুষ্ঠিত হয়। 

বর্তমানে মেলার স্থান সংকুচিত করে শুধু শহীদ রাজ্জাক পার্কের মধ্যে সীমাবদ্ধ করায় মেলার জৌলুস কমেছে। মেলা যাতে আগের ঐতিহ্য ফিরে পায় সে জন্য সব রকম উদ্যোগ নেওয়া জরুরী। সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামাল জানান, সাতক্ষীরা তথা বাঙালির সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য ধরে রাখতে মেলা শুরু করা হয়েছে। মেলায় যাতে কোনো ধরনের সমস্যা না হয় এ জন্য সব ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।