ঝালকাঠিতে পুড়ে যাওয়া লঞ্চ পরিদর্শন করলো নোঙর

ঝালকাঠিতে পুড়ে যাওয়া লঞ্চ পরিদর্শন করলো নোঙর

ইবনে ফরহাদ তুরাগঃ ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে লঞ্চে আগুন লাগার ঘটনায় নোঙর বাংলাদেশ এর ২১ সদস্য বিশিষ্ট ছায়া তদন্ত কমিটির গঠন সদস্যের একটি তদন্ত দল বরগুনাগামী এমভি অভিযানে অগ্নিকাণ্ড ও হতাহতের সঠিক কারণ অনুসন্ধানে সরেজমিনে তদন্ত করছে। 

 

গতকাল ১১ জানুয়ারি মঙ্গলবার সারাদিন তদন্ত দলের সদস্যরা ঝালকাঠি শহরের ডিসি পার্ক ও কালেক্টরেট স্কুল সংলগ্ন সুগন্ধা তীরে রাখা দুর্ঘটনা কবলিত লঞ্চটি ঘুরে দেখেন। এ সময় তাঁরা ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের কাছে ওই দিনের ঘটনার বর্ণনা শোনেন। 

পরিদর্শন শেষে তদন্ত দলের প্রধান নোঙর বাংলাদেশ এর প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সুমন শামস বলেন- লঞ্চের ব্যবস্থাপনা ছিল ত্রুটিপূর্ণ, আগুন লাগার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রী নিরাপদে রাখার জন্য পাড়ে ভিরানোর সেটা কিন্তু তারা করেনি, তিনি আরও বলেন, যাত্রীদের বাহিরে যাবার যে পথ ছিল সেটা কিন্তু এখনো তালা দেয়া, এরকম সুস্পষ্ট অনেকগুলো দৃশ্য আমরা দেখলাম, এতে আমরা এটা দূর্ঘটনা বলবো না, এটা মানবসৃষ্ট দূর্ঘটনা। 

নোঙর ছায়া তদন্তের সদস্য সচিব মিহির বিশ্বাস বলেন- এখানে যারা লঞ্চ পরিচালনা করছেন তারা যাত্রীদের নিরাপত্তার বিষয়ে একদম উদাসীন ছিলেন। নোঙর ছায়া তদন্তের কার্যকরী সদস্য আবির বাঙ্গালী বলেন- এখানে কতৃপক্ষের দ্বায়িত্ব ছিলো সবাইকে সচেতন করা এবং তাদেরকে কোনো পাড়ে নামিয়ে দেয়ার সহায়তা করা, তা না করে তাদের পলায়নপরতা এতগুলো মানুষের মৃত্যুর কারণ হয়েছে, এজন্য তারা মৃত্যুর দায় এড়াতে পারে না। 

উদ্ধারকাজে অংশ নেয়া নৌকার মাঝি মিজানুর জানান- হঠাৎ আমরা হুনি বাচাও বাচাও, আমি আর আমার ভাই আলিম আমাগো ট্রলার লইয়া ৮০/৯০ জনরে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে পাঠাইছি, কিছু ডেড বডী মিনি পার্কে উঠাইয়া দিছি। 

প্রসঙ্গত, গত ২৩ ডিসেম্বর (বৃহস্পতিবার) মধ্যরাতে ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা বরগুনাগামী এমভি অভিযান-১০ লঞ্চে ভয়াবহ আগুনের ঘটনা ঘটে। এতে এ পর্যন্ত ৪৮ জনের প্রাণহানীর খবর পাওয়া গেছে। প্রাণ বাঁচাতে নদীতে লাফিয়ে পড়েছেন অনেকেই। পুলিশ, জেলা প্রশাসন এবং রেড ক্রিসেন্টের নিখোঁজ তালিকার তথ্য মতে এখনও অনেকের সন্ধান পাওয়া যায়নি।

আজ সকালে ঝালকাঠি প্রেসক্লাবে উপস্থিত হয়ে সুগন্ধা নদীতে এমভি অভিযান -১০ লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার সঠিক কারণ অনুসন্ধানে এবং তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ ও সংবাদ সম্মেলন করবে নদী নিরাপত্তার সামাজিক সংগঠন নোঙর বাংলাদেশ।