দরিদ্রদের সেবা করে আলোচিত হয়েছেন অতুল সরকার

দরিদ্রদের সেবা করে আলোচিত হয়েছেন অতুল সরকার

সেতু আক্তার, ফরিদপুর জেলা প্রতিনিধি: বিভিন্ন মানুষের নানা সমস্যা সমাধানের পাশাপাশি হতদরিদ্র অসুস্থ ব্যক্তিদের গুরুত্ব দিয়ে সেবা দিচ্ছেন ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার। জেলার দরিদ্র অসুস্থ মানুষের ভরসাস্থল হয়ে উঠেছেন তিনি।

প্রতিনিয়তই জেলা প্রশাসকের কাছে হাজির হচ্ছেন জেলার বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত হতদরিদ্র অসুস্থ ব্যক্তিরা। কারো কিডনীতে সমস্যা, কারো ক্যান্সার, কারো বা বিষ ব্যাথা, কারো চোখে সমস্যা, কারো বা এর চাইতেও জটিল সমস্যা নিয়ে হাজির হচ্ছেন তারা।

জেলা প্রশাসক অতুল সরকার দরিদ্র অসুস্থ মানুষের কথা শুনছেন। কাউকে ঢাকায় পাঠাচ্ছেন ক্যান্সার হাসপাতালে, কাউকে কিডনী চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠাচ্ছেন। কাউকে পাঠাচ্ছেন ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আবার কাউকে পাঠাচ্ছেন ফরিদপুর সদর হাসপাতালে।

প্রতিনিয়তই সেবা সাহায্যের জন্য অসংখ্য মানুষ হাজির হচ্ছেন জেলা প্রশাসকের দ্বারে। জানাচ্ছেন তাদের সমস্যা। ছোট ছোট অসুস্থতা জনিত সমস্যার জন্য জেলা প্রশাসক অতুল সরকার নিজ উদ্যোগে নগদ সহায়তা করছেন। সেবা প্রার্থীদের দু’চারজন আবার টাকা নিতে অনিচ্ছুক। তাদের দাবী ঔষুধ কিনে দিতে হবে। জেলা প্রশাসক তাৎক্ষনিক টাকা দিয়ে ঔষুধের দোকান হতে ঔষুধ আনিয়ে দিচ্ছেন। জটিল রোগীদের চিকিৎসায় বেশি টাকা খরচ হতে পারে; তাই জটিল রোগীদের জন্য সরকার প্রদত্ত বরাদ্দ প্রাপ্তির ব্যবস্থা করছেন তিনি।

আজ (বুধবার ১৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে জেলা প্রশাসক অতুল সরকারের দ্বারে হাজির হয়েছে দশম শ্রেণীর এক ছাত্রী আখি আক্তার(১৬)। ফরিদপুর সদর উপজেলার একটি ইউনিয়নের বাসিন্দা সে। বাড়িতে আখির আরো ছোট দুই ভাই রয়েছে। একজন একটি এনজিও পরিচালিত বিদ্যালয়ে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ছে। অন্যজনের বয়স ৩ বছর। তাদের পিতা আলম শেখ অসুস্থ। কোন কাজ কর্ম করতে পারে না। সামান্য একটু ফসলি জমির উপর নির্ভরশীল পুরো পরিবার। কোন মতে দুবেলা দুমুঠো খাবার পেলেও বাবার চিকিৎসা করাতে পারছে না। তাই অসুস্থ বাবাকে নিয়ে জেলা প্রশাসক অতুল সরকারের দ্বারে হাজির।

জেলা প্রশাসক তার কথা শুনে এবং অসুস্থ বাবাকে দেখে তাকে নগদ সহায়তা করলেন। শুধু আখির বাবাকেই নয়, জেলা সদরের তাম্বুলখানা-কুজুর দিয়ার বিলকিছ বেগম, হালিমুন খাতুন, ভাটি লক্ষীপুরের রেহেনা খাতুন, কানাইপুর পশ্চিম গঙ্গাবদ্দীর আঃ ছাত্তার শেখ, মালাম দরানী, নিখরদী পশ্চিম বিলনালিয়ার মোঃ মাহমুদুল হাসান, আবদুল্লাহ সাকিন, চর কমলাপুরের রাশেদা, ববিতা, বিল মামুদপুরের লিলি বেগম, গোয়ালচামটের দীপক চন্দ্র শীল, কবিতা রানী শীল, বিহারী কলোনীর হাওয়া বেগম, বোয়ালমারী উপজেলার লষ্করদয়িার অমল বিশ্বাস প্রমুখকে আর্থিক সহায়তা, অধিক সহায়তার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।

জেলা প্রশাসক অতুল সরকার সাধারণত প্রতিদিনই জনসাধারণের কথা শুনে থাকেন। তবে বিশেষভাবে প্রতি বুধবার দীর্ঘ সময় নিয়ে গণশুনানী অনুষ্ঠিত হয়। এতে জমির একসনা বন্দোবস্ত প্রাপ্তি, আইনগত সহায়তা, আর্থিক সাহায্য, টিআর, জিআর. সরকারি ডেউটিন, চিকিৎসা সহায়তা প্রদান, মুক্তিযোদ্ধা ভাতা প্রাপ্তি, প্রতিবন্ধী ভাতা প্রাপ্তি, বিধবা ভাতা প্রাপ্তি, বাল্য বিবাহ রোধ, জমিজমা বিরোধ সংক্রান্ত, ঘর মেরামত, পড়ালেখার খরচ চালানো, শীতের পোষাক প্রাপ্তি, ধর্মীয় কার্যাদিসহ বিভিন্ন বিষয়ে জেলার নাগরিকগন জেলা প্রশাসককে জানান। জেলা প্রশাসক সেসব সমস্যা সমাধান করে থাকেন।

বিআলো/শিলি