মানুষের কাছে পুলিশি সেবা পৌছে দিচ্ছে যশোর জেলা পুলিশ 

মানুষের কাছে পুলিশি সেবা পৌছে দিচ্ছে যশোর জেলা পুলিশ 

আরিফুজ্জামান আরিফ শার্শা প্রতিনিধি: "পুলিশি-জনতা জনতাই পুলিশ" এ স্লোগানে দূর্বার গতিতে এগিয়ে চলেছে যশোর পুলিশ। যশোর পুলিশ সুপার আশরাফ হোসেন (পিপিএম) সার্বিক দিকনির্দেশনায় চলমান করোনা পরিস্থিতিতে শার্শা ঝিকরগাছা উপজেলার অসহায়, দুঃস্হ ও সাধারণ মানুষের কাছে পৌছে দিচ্ছেন পুলিশি সেবা।

আর সহকারী পুলিশ সুপার নাভারন সার্কেল এএসপি জুয়েল ইমরান দুই উপজেলার হাজার হাজার মানুষের মনিকোঠায় জায়গা করে নিয়ে এ দীপ্তিময় আলো ছড়িয়ে যাচ্ছেন। 

বাংলাদেশে পুলিশ বাহিনীর সত্যিকারের জনবান্ধব ও গর্বিত সদস্যের মধ্যে তার নাম এ দুই উপজেলার মানুষের কাছে নিষ্ঠার সাথে সেবা দিয়ে পুলিশকে নিয়ে গর্ব করার মত কর্ম পরিচালনা করছেন।

ইতিমধ্যে দুই উপজেলার হাজার হাজার  মানুষের আস্থা ও ভালোবাসার প্রতীক হয়ে উঠেছেন একজন সৎ, দক্ষ ও মানবিক পুলিশ অফিসার হিসেবে এএসপি জুয়েল ইমরান (নাভারন সার্কেল)। জনগণের সেবকের ভূমিকায় অবতীর্ন হয়ে তিনি পুলিশ সম্পর্কে সাধারণ মানুষের নেতিবাচক ধারণাই পাল্টে দিয়েছেন। অত্যাচারিত, অবহেলিত আর নিগৃহীত জনগোষ্ঠীর পাশে তিনি দাঁড়িয়ে সকলের আস্থা,ভালোবাসা ও বিশ্বাসের কেন্দ্রবিন্দু হয়েছেন। 

সততার মাধ্যমে আর নিরলস পরিশ্রমে নিজের পেশাগত দায়িত্ব পালন করে  তিনি নিজেকে নিয়ে গেছেন এক অনন্য উচ্চতায়। হয়েছেন এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। মানব কল্যানে ও সেবায় নিজেকে ব্রতী করেছেন মহৎপ্রাণ এই পুলিশ কর্মকর্তা ।

এছাড়া উপজেলা দুটির সকল শ্রেণী পেশার মানুষকে সমান চোখে সবসময় আইনি সহায়তাও পুলিশি সেবা দিয়ে তিনি নিষ্ঠা ও সততার বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। 

মাদকমুক্ত দেশ গড়তে  মাদকবিরোধী অভিযানেও ব্যাপক সাফল্য অর্জন করেছেন তিনি ।চৌকস এই পুলিশ কর্মকর্তার দক্ষতায় বেড়েছে পুলিশের কর্মদক্ষতা।চলমান করোনা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় পাশে দাঁড়িয়েছেন সাধারণ মানুষের। নানা সামাজিক কর্মকান্ডেও অগ্রভাগে থাকেন তিনি।

যশোর  জেলার এ দুটি উপজেলায় রাত দিন জীবনের ঝুকি নিয়ে মানুষের দ্বারে দ্বারে ছুটে চলেছেন তিনি। 

সূধীজনেরা জানান, যশোর  জেলার পুলিশ সুপার আশরাফ হোসেন ( পিপিএম) এবং সহকারী পুলিশ সুপার নাভারণ সার্কেল এএসপি জুয়েল ইমরানের কাছে সাধারণ মানুষ যেমনটা আশা করেন,( সৎ নিষ্ঠাবান এ দুজন অফিসার )ঠিক তেমনই মানুষের মনের ভিতরে অল্প সময়ে বিশ্বাস  অর্জন করেছেন।পাশাপাশি সুখে দু:খে মানুষের জন্য সমান তালে কাজ করে যাচ্ছেন।

মিষ্টভাষী, দায়িত্বশীল ও মানবিক হৃদয়ের অধিকারী জীবনের মায়া ত্যাগ করে এ মহামারীতেও রাতে দিনে খাবার  পৌছে দিচ্ছেন মানুষের মাঝে। করোনা ভাইরাসকে ভয় না করে তিনি তার দায়িত্বকে যথাযথ ভাবে পালন করে যাচ্ছেন। 

খেটে খাওয়া মানুষের পাশে সবসময় তিনি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। পুলিশ যে জনগণের প্রকৃত বন্ধু তার প্রমান তিনি করে দেখিয়েছেন। ভবিষ্যতেও তার কর্মের মাধ্যমে সাধারণ জনগণের আস্থার প্রতিক হয়ে উঠবেন আবারও পুলিশ এমনটাই আশা করে এ দুই উপজেলা বাসি।

সহকারী পুলিশ সুপার জুয়েল ইমরান, বলেন আমি মানুষের মাঝে  যতদিন বেচেঁ থাকবো ততদিন মানুষের কল্যানে জন্য কাজ করে যাব। আমার এলাকায় কোন মানুষ না খেয়ে থাকবে না।

সরকার সাধারন মানুষের দেখার জন্য আজকে আমাকে সহকারী পুলিশ সুপার করেছেন।সরকারী সকল বিধি বিধান মেনে মানুষকে সেবা করে জনগনের পাশে থেকে দেশকে মাদক মুক্ত করে যাব ইনশাআল্লাহ।

বিআলো/শিলি