শিশুরাও আক্রান্ত হতে পারে ক্যান্সারে

শিশুরাও আক্রান্ত হতে পারে ক্যান্সারে

অধ্যাপক ডা. মো. ইয়াকুব আলী : ক্যান্সার যে কোনো বয়সে, যে কোনো শ্রেণির মানুষের যে কোনো অঙ্গে হতে পারে। আক্রান্ত হতে পারে শিশুরাও। শিশুরা সাধারণত যে ধরনের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে থাকে, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো চোখের ক্যান্সার, কিডনির ক্যান্সার, স্নায়ু ক্যান্সার, লিভার ক্যান্সার ও ব্রেইন ক্যান্সার। এ ছাড়া ব্লাড ক্যান্সার ও হাড়ের ক্যান্সারও হতে পারে। স্লোগান আছে সূচনায় পড়লে ধরা, ক্যান্সার রোগ যায় যে সারা। সব ক্যান্সারের বেলায় এটি প্রযোজ্য।

শিশুদের চোখের ক্যান্সারের প্রাথমিক লক্ষণ হলো, চোখের মণি সাদা হয়ে যাওয়া এবং রাতে বিড়ালের চোখের মতো দেখানো। কিডনি ক্যান্সার হলে পেটের যে কোনো পাশে একটি চাকা বা টিউমার অনুভূত হয়। বেশি বড় হলে পেট ফুলে যায়। স্নায়ু ক্যান্সার হলে যেখানে হবে, সে স্থান ফুলে যাবে এবং ব্যথা অনুভূত হবে।

লিভার ক্যান্সার হলে পেটের ডান দিকে পাঁজরের নিচে ফুলে যাবে ও ব্যথা করবে। ব্রেইন ক্যান্সার হলে মাথাব্যথা, হাঁটা-চলায় অসুবিধা, বমি হওয়া, দুর্বল হয়ে পড়া, জ্বর হওয়া, বিনা কারণে রক্ত পড়াসহ বিভিন্ন উপসর্গ দেখা দেবে। হাড়ের ক্যান্সার হলে ফুলে যাবে ও ব্যথা করবে। এসব রোগ সাধারণত ছয় মাস বয়স থেকে ১২ বছরের মধ্যে হয়ে থাকে। রোগ নির্ণয়ের জন্য রোগের বিস্তারিত বিবরণসহ বংশগত কোনো কারণ আছে কিনা জানতে হবে। 

শিশুদের ক্যান্সারের অনেকটাই বংশগত কারণে হয়ে থাকে। এরপর শারীরিক পরীক্ষা শেষে রক্ত পরীক্ষা এবং কিছু টিউমার মার্কার টেস্ট, যেগুলো ওই নির্দিষ্ট ক্যান্সারে (Related) থাকে, সেগুলো করতে হবে। এরপর চোখের ও মস্তিষ্কের ক্যান্সার বাদে অন্যগুলোর এফএনএসি (FNAC) করে প্রায় ৮০ শতাংশ ক্ষেত্রে ক্যান্সার সঠিকভাবে নির্ণয় করা সম্ভব। সময়মতো সঠিক চিকিৎসা দিতে পারলে ৮০ শতাংশ শিশুর ক্যান্সার নিরাময় সম্ভব।

লেখক : অধ্যাপক ডা. মো. ইয়াকুব আলী 
(টিউমার ও ক্যান্সার রোগ বিশেষজ্ঞ)
অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান
শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল
চেম্বার : আল-রাজি হাসপাতাল (২য় তলা) ফার্মগেট,
ও ইসলামী ব্যাংক হাসপাতাল, কাকরাইল।
সময় : ২ঃ৩০ থেকে সন্ধ্যা ৭ঃ৩০মিঃ
০১৬৪৪-৪৩৩ ৪৯৮
০১৭৪৫-৩৪৯ ৪১৫
০২-৯১৩৩৫৬৩-৪