• যোগাযোগ
  • অভিযোগ
  • ই-পেপার
    • ঢাকা, বাংলাদেশ
    • যোগাযোগ
    • অভিযোগ
    • ই-পেপার

    আইসিটি খাতে বিনিয়োগে জাপানি বিনিয়োগকারীদের আহ্বান পলকের 

     dailybangla 
    10th May 2024 5:50 pm  |  অনলাইন সংস্করণ

    নিজস্ব প্রতিবেদক: ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, স্বাধীনতা থেকে শুরু করে বর্তমান পর্যন্ত জাপান বাংলাদেশের বিশ্বস্ত উন্নয়ন সহযোগী। হাইওয়ে কমিনিকেশন, মেট্রোরেল, থার্ড টার্মিনাল, মাতারবাড়ী বিদ্যুৎ কেন্দ্র, মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্রবন্দরসহ বিভিন্ন মেগা প্রজেক্টে জাপান সফলতার সঙ্গে কাজ করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় দীর্ঘমেয়াদী ভিশন নিয়ে পোস্ট, টেলিকম এবং আইসিটি খাতে বিনিয়োগ করতে জাপানি বিনিয়োগকারীদের প্রতি আহ্বান জানান প্রতিমন্ত্রী।

    প্রতিমন্ত্রী বৃহস্পতিবার রাজধানীর ওয়েস্টিন হোটেলে আইটি ও আইটিইএস সেক্টরে বাংলাদেশে জাপানি বিনিয়োগকে উৎসাহিত করতে জাপানি বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণে বাংলাদেশ আইটি বিজনেস সামিট-২০২৪ শীর্ষক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

    প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশের লঞ্চপ্যাডের উপর ভিত্তি করে ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার তার নতুন রূপকল্প ঘোষণা করেছেন। স্মার্ট সিটিজেন হল স্মার্ট বাংলাদেশের ৪টি স্তম্ভের মধ্যে প্রথম এবং প্রধান স্তম্ভ, যার অর্থ স্মার্ট সিটিজেন হবে সৃজনশীল, উদ্ভাবনী এবং সমস্যা সমাধানকারী। বাংলাদেশি তরুণ মেধাবী প্রকৌশলীরা জাপানে ইএমআই ল্যাবের মতো আইওটি এবং রোবোটিক্স ভিত্তিক সমাধান নিয়ে কাজ করছেন। হতে পারে, অল্প সময়ের মধ্যে বাংলাদেশে এমন উদ্ভাবনী সমস্যা সমাধানকারীর প্রয়োজন হবে। করোনার সময়, আমরা কৃষি কর্মশক্তির ঘাটতির সম্মুখীন হয়েছি, তাই আমাদের অবশ্যই আইওটি, এআই এবং রোবোটিক্সের মতো সীমান্ত প্রযুক্তি ব্যবহার করে এই ক্ষেত্রের যান্ত্রিকীকরণ করতে হবে।

    প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, প্রযুক্তি, বিশেষ করে আইসিটি, একটি আন্তঃসীমান্ত সমস্যা, এর কোনো ভূমি সীমানা নেই। আমাদের প্রায় ৭ লাখ আইটি ফ্রিল্যান্সার বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে কাজ করছে। তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, জাপান, অস্ট্রেলিয়া , সিঙ্গাপুর এবং বিশ্বের অন্যান্য দেশের বহুজাতিক কোম্পানির সঙ্গে আউটসোর্সিং করছে। আমরা আইসিটি সেক্টরে একটি স্টার্টআপ এবং উদ্যোক্তা বিপ্লব প্রত্যক্ষ করেছি। উদ্যোক্তা এবং ফ্রিল্যান্সাররা শুধুমাত্র নিজেদের জন্য অর্থ উপার্জন করে না, আমাদের জাতীয় অর্থনীতিতেও অবদান রাখে। এভাবেই আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে এবং সজীব ওয়াজেদ জয়ের গতিশীল দিক-নির্দেশনায় আমাদের অর্থনীতিকে শ্রমভিত্তিক থেকে প্রযুক্তিভিত্তিক অর্থনীতিতে রূপান্তরিত করেছি এবং এখন আমরা জ্ঞানভিত্তিক অর্থনীতিতে এগিয়ে যাচ্ছি।

    তিনি আরও বলেন, ইলেকট্রনিক্স, ডিজিটাল ডিভাইস ম্যানুফ্যাকচারিং, অ্যাসেম্বলিং প্ল্যান্ট, সফ্টওয়্যার, আইসিটি শিল্প এবং স্টার্টআপে জাপানি কোম্পানিগুলির আগ্রহ আমি দেখেছি। বর্তমানে, আমাদের বাংলাদেশে ২ হাজার ৫০০টি স্টার্টআপ রয়েছে এবং তাদের মধ্যে ২০০টি স্টার্টআপ জাপান, সিঙ্গাপুর, ভারত এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ ২ বিলিয়ন ডলার পেয়েছে। এটি দেখায় যে বাংলাদেশি স্টার্টআপগুলি বিশ্বব্যাপী বিশ্বাস অর্জন করেছে। এই সব সাফল্যের পাশাপাশি দক্ষ মানবসম্পদ, রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, বাজার মাপযোগ্যতা, পলিসি, সরকারি সহায়তা এবং লজিস্টিক সকল ক্ষেত্রে বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ তৈরি করেছে। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ এবং বাংলাদেশের যোগাযোগ ও অভ্যন্তরীণ অবকাঠামোগত উন্নয়নে জাপান বাংলাদেশের বিশ্বস্ত বন্ধু। আমারা বেসরকারি খাত এবং জাপান সরকারের সহযোগিতায় স্মার্ট বাংলাদেশ রূপকল্প অর্জনের মাধ্যমে সাফল্যের শিখরে পৌঁছাতে চাই।

    অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইওয়ামা কিমিনোরি, বাংলাদেশ স্টার্টআপ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সামি আহমেদ, বেসিসের সভাপতি রাসেল টি আহমেদ, বেসিসের আহমেদুল ইসলাম বাবু।

    বিআলো/শিলি

    এই বিভাগের আরও খবর
     
    Jugantor Logo
    ফজর ৫:০৫
    জোহর ১১:৪৬
    আসর ৪:০৮
    মাগরিব ৫:১১
    ইশা ৬:২৬
    সূর্যাস্ত: ৫:১১ সূর্যোদয় : ৬:২১

    আর্কাইভ

    July 2024
    M T W T F S S
    1234567
    891011121314
    15161718192021
    22232425262728
    293031