আ.লীগের টপ টু বটম মিথ্যা কথা বলে : রিজভী

আ.লীগের টপ টু বটম মিথ্যা কথা বলে : রিজভী


নিজস্ব প্রতিবেদক:আওয়ামী লীগের টপ টু বটম মুখস্ত মিথ্যা কথা বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।


রবিবার নড়াইলের একটি মামলায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে সাঁজা দেয়ার প্রতিবাদে জাতীয়তাবাদী মৎসজীবি দলের উদ্দ্যোগে রাজধানীর পল্টন মোড় থেকে বিজয় নগর পর্যন্ত একটি বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী বলেন, দুই দিন আগে পরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেছেন বাংলাদেশ হাঙ্গেরীকে ৫ হাজার ভ্যাকসিন দিবে। অথচ আমরা যেটি জানতে পারলাম হাঙ্গেরীর সাথে এ বিষয়ে কোনো কথাই বলা হয়নি। কারণ হাঙ্গেরি নিজেই একটি উন্নত দেশ তাদের বাংলাদেশ থেকে টিকা নেয়ার কথা না। সেটা তাদের গণমাধ্যমেই প্রচার হয়েছে সেখানে বলা হয়েছে তারা বাংলাদেশ থেকে টিকা নিবে না।


আওয়ামী লীগের টপ টু বটম মুখস্ত মিথ্যা কথা বলে এমন মন্তব্য করে রুহুল কবির রিজভী বলেন, 'শাহরিয়ার আলমও সেই মুখস্ত মিথ্যা কথাই বললেন। যারা জনগণের কাছে জবাবদিহীতা করে না তাদের কোনো নীতি নৈতিকতা নেই তারা মিথ্যা কথা বলাকে জায়েজ মনে করে। শুধু দেশের লোককে তারা বিভ্রান্ত করছে না গোটা বিশ্ববাসীকে ওই তারা বিভ্রান্ত করছে এবং এটা করতে গিয়ে তারা গোটা দেশের ইমেজকে বিনষ্ট করছে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করছে।


রিজভী আরো বলেন, দেশে এখন করোনা টিকা দেয়া হচ্ছে। আমরা আগে থেকেই বলছি ভারত থেকে যে করোনার টিকা নিয়ে আসা হয়েছে এটার বিষয়ে আরো বেশি গবেষণা করে এটার নির্ভুল এবং এটা যে মানবদেহের জন্য কার্যকর হবে এই বিষয়টা আরো বেশি করে মানুষের সামনে তুলে ধরা উচিত ছিল। কিন্তু সরকার সেটা না করে একতরফাভাবে করোনার ভ্যাকসিন দেয়া শুরু করেছে ফলে মানুষের মধ্যে যে সন্দেহ সেই সন্দেহটা থেকেই গেছে। এই টিকা নিয়ে মানুষের মধ্যে কোনো আগ্রহ নেই। টিকা নেয়ার জন্য ১৮ কোটি মানুষের দেশে মাত্র ২ লাখ মানুষ রেজিস্ট্রেশন করেছে এতেই বোঝা যায় যে মানুষের কোনো আগ্রহ নেই এটা নেয়ার জন্য।


বিক্ষোভ মিছিলে অংশগ্রহণ করেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি'র সভাপতি ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, সাধারণ সম্পাদক আবুল বাশার, মৎস্যজীবী দলের সদস্য সচিব আব্দুর রহিম, স্বেচ্ছাসেবকদলের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডাঃ জাহিদুর রহমান যুবদল নেতা গিয়াস উদ্দিন মামুন, সোহেল আহমেদ, স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা মোরশেদ আলম ও ছাত্রদল নেতা রাজু আহমেদ।

বিআলো/শিলি