চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ব্যথার ওষুধ খেলে কিডনি নষ্ট হতে পারে : বিএসএমএমইউ উপাচার্য

চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ব্যথার ওষুধ খেলে কিডনি নষ্ট হতে পারে :  বিএসএমএমইউ উপাচার্য

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসের রোগীদের চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ খাওয়ার আহ্বান জানিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেছেন, চিকিৎসকের পরামর্শ ব্যতীত ব্যথার ওষুধ খেলে কিডনি ক্ষতিগ্রস্ত হবে, কিডনি নষ্ট হয়ে যাবে। তিনি গতকাল শনিবার সকালে বিএসএমএমইউতে রিউমাটয়েড আর্থাইটিস সচেতনতা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত শোভাযাত্রায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।

এদিন 'রিউমাটয়েড আর্থাইটিসে সুন্দর ভবিষ্যৎ প্রয়োজন দ্রুত রোগ নির্ণয় এবং যথাযথ চিকিৎসার প্রতিপাদ্য নিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিস সচেতনতা দিবস পালিত হয়। দিবসটি উপলক্ষে বিএসএমএমইউতে একটি বর্ণাঢ্য শোভা ও আলোচনাসভার আয়োজন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের রিউমাটোলোজি বিভাগ। সকাল সাড়ে ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ শেখ রাসেল ফোয়ারার সামনে থেকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা শুরু হয়ে বটতলা, এ-ব্লক প্রদক্ষিণ করে টিএসসি হয়ে ডি ব্লকে গিয়ে শেষ হয়। এছাড়া এ ব্লক মিলনায়তনে দিবসটি উপলক্ষে একটি বৈজ্ঞানিক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

শোভাযাত্রায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবুর রহমান দুলাল, রিউমাটোলোজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মিনহাজ রহিম চৌধুরী, অনকোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. নাজির উদ্দিন মোল্লাহ্, অধিকতর উন্নয়ন প্রকল্পসমূহের পরিচালক সহযোগী অধ্যাপক ডা. ফারুক হোসেন, সহেযাগী অধ্যাপক (সার্জিক্যাল অনকোলোজি) ডা. মো. রাসেল, রিউমাটোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. শামীম আহমেদ, সহকারী অধ্যাপক ডা. মেজর (অব.) সৈয়দ জামিল আব্দাল, উপপরীক্ষা নিয়ন্ত্রক দেবাশীষ বৈরাগী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

শোভাযাত্রায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএসএমএমইউ উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, যখনই কোনো মানুষের শরীরে সন্ধিতে ব্যথা অনুভব করবেন, তখনই রিউমাটোলজি উমাটোলজি বিভাগের চিকিৎসকের পরামর্শ নেবেন। সেখানকার পরামর্শ অনুযায়ী পরীক্ষা নিরীক্ষা করবেন। রোগ ধরা পড়লে চিকিৎসকের নির্দেশনা মোতাবেক চলাচল করলে এ রোগের ক্ষয়ক্ষতি থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে। ব্যথা নিয়ে ঘরে পড়ে থাকলে ক্ষতি হবে। এটি এমন রোগ, যা শরীরের অন্যান্য অংশকেও ক্ষতিগ্রস্ত করে। এমন রোগীরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে সুচিকিৎসা পাবেন। রিউমাটয়েড আর্থাইটিসের চিকিৎসা না করলে মানুষ পঙ্গু হয়ে ঘরে বসে থাকবে। এতে দেশের অর্থনৈতিক ক্ষতি সাধিত হয়।

উপাচার্য বলেন, রিউমাটয়েড আর্থাইটিসের রোগীরা ঘরে বসে ব্যথার ওষুধ খেয়ে থাকেন। নিজেরা ওষুধ না খেয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ওষুধ খাবেন। চিকিৎসকের পরামর্শ ব্যতীত ব্যথার ওষুধ খেলে কিডনি ক্ষতিগ্রস্ত হবে, কিডনি নষ্ট হয়ে যাবে। বাংলাদেশের ১৭ হাজার রোগী কিডনির ডায়ালাইসিস নিয়ে থাকেন এবং প্রায় তিন হাজার রোগীর কিডনি প্রতিস্থাপনের প্রয়োজন হয়।

উপাচার্য আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের রিউমাটোলজি বিভাগ সুনাম বয়ে আনছে। যারা বেশ ভালো ভালো গবেষণার কাজ করছেন তাদের এ গবেষণার মাধ্যমে আর্ন্তজাতিক অঙ্গনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম বৃদ্ধি করেছেন।

বিআলো/তুরাগ