হেফাজতের তাণ্ডবের পেছনে রাজনৈতিক অভিলাষ: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

হেফাজতের তাণ্ডবের পেছনে রাজনৈতিক অভিলাষ: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিনিধি : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, হেফাজতে ইসলামের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী তাদের 'রাজনীতির ঊর্ধ্বে' থাকার কথা। কিন্তু গঠনতন্ত্র না মেনে সংগঠনটি সাম্প্রতিক তাণ্ডব চালিয়েছে। এর পেছনে তাদের 'রাজনৈতিক অভিলাষ' ছিল। এসব কর্মকাণ্ডের অর্থের যোগানদাতা কারা কীভাবে কোন ব্যাংক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে তা এখন তদন্তকারীরা জানতে পেরেছেন।

বৃধবার ধানমন্ডিস্থ সরকারি বাসবভনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তাদের গঠনতন্ত্রে স্পষ্ট লেখা আছে তারা কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করতে পারবেন না। সবসময় রাজনীতি ঊর্ধ্বে থাকবেন। কিন্তু তারা সবসময় রাজনৈতিক বেড়াজালের মধ্যে থেকে বিভিন্ন অপকৌশলে জড়িয়েছেন। মাঝে মাঝেই চিহ্নিত জঙ্গি, চিহ্নিত সন্ত্রাসী, যারা সব সময় রাষ্ট্রের একটা অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করে, তাদের মধ্যে সম্পৃক্ত হয়ে যায়। এটি কাম্য নয়।

হেফাজতে ইসলামের অর্থ যোগানদাতা কারা জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এবিষয়ে গোয়েন্দা সংস্থা কাজ করছে। ইতোমধ্যে কিছু কিছু উপাদান পাওয়া গেছে। কার অ্যাকাউন্টে কোথা থেকে কীভাবে টাকা এসেছে সেগুলো তদন্ত চলছে। আরও কিছু তদন্ত করে তারপর ঘোষণা দেওয়া হবে।ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের বিরোধিতা করে মার্চে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে তাণ্ডব চালায় হেফাজতে ইসলামের কর্মী-সমর্থক মাদ্রাসার ছাত্ররা। চট্টগ্রাম ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে প্রাণহানিও ঘটে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ বিষয়ে বলেন, যথেষ্ট ভাঙচুর হয়েছে, ভূমি অফিস, এসিল্যান্ড আফিস পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। ডিসির বাংলায় আক্রমণ করা হয়েছে, পুলিশ ফাড়িতে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। নিরাপত্তা বাহিনী সে পরিস্থিতি সামাল দিতে পেরেছে। হেফাজতের মাধ্যমে একটা কিছু ঘটানো যায় কিনা- তেমনটি বিগতদিনে শাপলা চত্বরে ঘটেছিল। ঠিক সেই রকম কিছু করার দূরভিসন্ধি ছিল বলে এখনো পর্যন্ত তদন্তে পাওয়া গেছে।

বি আলো / মুন্নী